ঢাকাশুক্রবার, ২৭শে জানুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ

চীনকে ‘মারাত্মক হুমকি’ হিসেবে দেখছে ন্যাটো

ইমরান রহমান অনিম
জুলাই ১, ২০২২ ১০:৫২ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

ন্যাটোর ভবিষ্যৎ কৌশলপত্রে এ প্রথম চীনকে ‘মারাত্মক হুমকি’ হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করার বিষয়ে একমত হয়েছে সামরিক জোটটির সদস্য রাষ্ট্রগুলো। স্পেনের রাজধানী মাদ্রিদে ন্যাটোর শীর্ষ সম্মেলনে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। তবে ন্যাটোর এ হুঁশিয়ারিকে ‘অতিরঞ্জিত’ বলে মন্তব্য করেছে চীন।
পশ্চিমা দেশগুলোর সামরিক জোট ন্যাটোর তিন দিনের সম্মেলন শুরু হয় মঙ্গলবার (২৮ জুন)। তবে শীর্ষ নেতাদের মূল আলোচনায় গুরুত্ব পায় রুশ-ইউক্রেন যুদ্ধ ইস্যু। একই সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বাধীন পশ্চিমা এ জোটের তালিকায় মারাত্মক নিরাপত্তা হুমকি হিসেবে জায়গা করে নেয় চীন। তবে চীনকে হুমকির পর্যায়ে ধরার ঘটনা এ প্রথম।

ন্যাটোর কৌশলগত ধারণাপত্রে বলা হয়, চীনের ক্ষতিকর সাইবার কার্যক্রম, সংঘাতপ্রবণ বক্তব্য ও গুজবের লক্ষ্যবস্তু হচ্ছে মিত্ররা। এতে জোটের নিরাপত্তা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। মহাকাশ, সাইবার ও সামুদ্রিক ক্ষেত্রগুলোর পাশাপাশি আইনের শাসননির্ভর আন্তর্জাতিক ব্যবস্থা ধ্বংসের প্রচেষ্টায় রাশিয়ার সঙ্গে চীনের গভীর অংশীদারত্বের বিষয়টিও এ ধারণাপত্রে গুরুত্বের সঙ্গে উল্লেখ করা হয়।
ন্যাটো মহাসচিব জেন্স স্টলটেনবার্গ বলেন, স্বচ্ছতা কিংবা অস্ত্র নিয়ন্ত্রণের সদিচ্ছা নেই চীনের। কোনো কিছুর তোয়াক্কা না করেই পারমাণবিক সামর্থ্যও ব্যাপকভাবে বাড়াচ্ছে চীন সরকার। পাশাপাশি কৌশলগত নির্ভরশীলতা তৈরি ও প্রভাব বাড়াতে অর্থনৈতিক সামর্থ্যকে কাজে লাগাচ্ছে দেশটি।

সম্মেলনে বেইজিংয়ের বিরুদ্ধে আইনের শাসনভিত্তিক বৈশ্বিক ব্যবস্থাকে দুর্বল করার অভিযোগ করেছেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেন। তিনি বলেন, আইনের শাসনে বিশ্বাস করে যুক্তরাষ্ট্র। তবে চীন যদি এ চিন্তাধারাকে কোনোভাবে চ্যালেঞ্জ করে, তবে সেই প্রচেষ্টার বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্র রুখে দাঁড়াবে বলেও হুঁশিয়ার করেন তিনি।

তবে ন্যাটোর এ পদক্ষেপের তীব্র বিরোধিতা করেছে চীন। দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ঝাও লিঝিয়ান সংবাদ সম্মেলনে বলেন, কথিত চীনা হুমকি নিয়ে অতিরঞ্জিত প্রচার একেবারেই অনর্থক। সামরিক জোট ন্যাটোর কথিত কৌশলপত্রে অবাস্তব কথা বলা হয়েছে বলেও দাবি করেন তিনি। সম্মেলনে চীনা পররাষ্ট্রনীতি নিয়ে অপপ্রচার চালানো হয়েছে বলেও অভিযোগ করেন তিনি।