ঢাকারবিবার, ৪ঠা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

শ্রীলঙ্কার পার্লামেন্টে বিশেষ অধিবেশন শুরু

ইমরান রহমান অনিম
জুলাই ১৬, ২০২২ ১:৩৩ অপরাহ্ণ
Link Copied!

শ্রীলঙ্কার পার্লামেন্টে শুরু হয়েছে বিশেষ অধিবেশন। শনিবার (১৬ জুলাই) সকাল ১০টায় এ বিশেষ অধিবেশন শুরু হয়।
ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের খবরে বলা হয়, অধিবেশন উপলক্ষে পার্লামেন্টের আশপাশের রাস্তা বন্ধ করে দেয়া হয়েছে এবং জনসাধারণকে বিকল্প পথ ব্যবহার করার আহ্বান জানানো হয়েছে।

দেশটির সংবিধান ও ১৯৮১ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচন (বিশেষ বিধান) আইনের নম্বর ২ এর ৪ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী, পার্লামেন্ট স্থানীয় সময় সকাল ১০টায় বসার কথা। প্রেসিডেন্ট পদ শূন্য হওয়ার তিন দিনের মধ্যে সংসদ আহ্বান করার কথা বলা হয়েছে দেশটির সংবিধানে। সে হিসেবে আজ প্রেসিডেন্ট পদ শূন্য আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষণা হবে বলে জানা গেছে।

ইতোমধ্যে দেশ ছেড়ে চলে গেছেন গোতাবায়া রাজাপাকসে। প্রথমে তিনি মালদ্বীপ যান, সেখান থেকে সিঙ্গাপুরে গিয়ে স্পিকারের কাছে পদত্যাগপত্র পাঠিয়ে দিয়েছেন। শুক্রবার স্পিকার মাহিন্দা ইয়াপা আবেওয়ার্দেনা বলেন, গোতাবায়া বৈধভাবে প্রেসিডেন্ট পদ ছেড়েছেন। যা গতকাল থেকে কার্যকর হবে।

এর আগে দেশটির স্পিকার মাহিন্দা ইয়াপা জানান, আগামী ২০ জুলাই নতুন প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হবে। স্পিকার আরও বলেন, গণতান্ত্রিক কাঠামোর মধ্যে কোনো বাধা ছাড়াই দ্রুত এ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে তিনি সব দলের সমর্থন প্রত্যাশা করেন।

শ্রীলঙ্কায় প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের নিয়মে পরিবর্তন আনা হয়েছে। সাধারণ নাগরিকদের সমর্থনে (পপুলার ভোট) নয়, পার্লামেন্টের সদস্যদের ভোটেই নির্বাচিত হবেন পরবর্তী প্রেসিডেন্ট। আগামী সাত দিনের মধ্যেই নতুন প্রেসিডেন্ট বেছে নেয়া বলে জানিয়েছেন স্পিকার মাহিন্দা ইয়াপা আবেওয়ার্দেনা।

স্পিকার আবেওয়ার্দেনা আরও জানিয়েছেন, ২২৫ জন পার্লামেন্ট সদস্যের মধ্যে সংখ্যাগরিষ্ঠ ভোটের ভিত্তিতে পরবর্তী প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হবেন। প্রেসিডেন্টের পদ দখলের লড়াইয়ে এখন পর্যন্ত চার জনের নাম শোনা গেছে।

তারা হলেন, প্রধানমন্ত্রী ও ভারপ্রাপ্ত প্রেসিডেন্ট রনিল বিক্রমসিংহে, পার্লামেন্টের বিরোধী দলনেতা সাজিথ প্রেমাদাসা, প্রবীণ সাংবাদিক থেকে পার্লামেন্ট সদস্য ডলাস অলহাপেরুমনা ও সাবেক সেনাপ্রধান ফিল্ড মার্শাল শরৎ ফনসেকা।

সাধারণত শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ভোট দেন দেশটির প্রত্যেক নাগরিক। কিন্তু এত কম সময়ের মধ্যে সেই আয়োজন অসম্ভব বলে মনে করা হচ্ছে। তাই পার্লামেন্টের সদস্যদের ভোটের ভিত্তিতেই অন্তর্বর্তী প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের সিদ্ধান্ত হয়েছে সর্বদলীয় বৈঠকে।

এদিকে শুক্রবার (১৫ জুলাই) শ্রীলঙ্কার ভারপ্রাপ্ত প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী রনিল বিক্রমাসিংহে। লঙ্কান প্রধান বিচারপতি জয়ন্তা জয়সুরিয়া শপথবাক্য পাঠ করান তাকে।

করোনার ধাক্কায় ১৯৪৮ সালে স্বাধীনতা লাভের পর থেকে সবচেয়ে বড় অর্থনৈতিক সংকট পার করছে শ্রীলঙ্কা। এতে শ্রীলঙ্কার অর্থনৈতিক পরিস্থিতি আগের মতো অবস্থায় ফিরে যাওয়ার হুমকিতে পরে। এ ছাড়া দেশটির টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) মারাত্মকভাবে ব্যাহত হয়।