ঢাকাবৃহস্পতিবার, ১লা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

রাশিয়ার হাইপারসনিক ক্যালিবার মিসাইলে ইউক্রেনে অস্ত্রাগার ধ্বংস

আন্তর্জাতিক ডেস্ক :
আগস্ট ২২, ২০২২ ১১:৫৩ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

ইউক্রেনের একটি অস্ত্রাগার ধ্বংসের দাবি করেছে রাশিয়া। রোববার (২১ আগস্ট) ইউক্রেনের বন্দর শহর ওডেসার ওই অস্ত্রাগারে বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। রাশিয়া জানিয়েছে, যুদ্ধজাহাজ থেকে ছোঁড়া হাইপারসনিক ক্যালিবার মিসাইলের সাহায্যে ওডেসার অস্ত্রাগারটি ধ্বংস করা হয়েছে।

ওই অস্ত্রাগারেই যুক্তরাষ্ট্রের দেওয়া হাইমার রকেট সিস্টেম ছিল বলেও দাবি করেছে রাশিয়া। শুধু তা-ই নয়, খেরসনে ইউক্রেনের দু’টি এম ৭৭৭ হাউইৎজারও রুশ সেনারা ধ্বংস করেছে বলে দেশটি জানিয়েছে। ১০০ টন ডিজেল মজুত থাকা একটি পাম্পেও বিস্ফোরণ ঘটানো হয়েছে বলে জানিয়েছে ক্রেমলিন।

ইউক্রেন অবশ্য এসব দাবির কোনোটিই স্বীকার করেনি। তাদের পাল্টা দাবি, রাশিয়ার নিক্ষেপ করা দু’টি মিসাইল মাঝ আকাশেই ধ্বংস করেছে তারা। তৃতীয় মিসাইলটি একটি শস্যের গুদামে আঘাত হেনেছে। এতে গুদামটিতে আগুন লেগে যায়। কিন্তু এ ঘটনায় কারও মৃত্যু হয়নি।

ইউক্রেনের দাবি, রোববার রাশিয়ার হামলায় শস্য নষ্ট হওয়া ছাড়া আর কোনো ক্ষতি হয়নি। অস্ত্রাগার ধ্বংসের কথাটিও সম্পূর্ণ অস্বীকার করেছে কিয়েভ। তবে কোনো পক্ষের দাবির সত্যতাই পরীক্ষা করে দেখতে পারেনি ডয়চে ভেলে।

এদিকে রোববার রাতে দেওয়া ভিডিওবার্তায় ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি জানিয়েছেন, রাশিয়া আবারও মানবাধিকার লঙ্ঘন করার প্রক্রিয়া শুরু করেছে। তার দাবি, রাশিয়া পরিকল্পনা করেছে, ইউক্রেনের যুদ্ধবন্দিদের প্রকাশ্যে বিচার হবে। মূলত মারিউপলের কারখানা থেকে আটক করা সেনাদের প্রকাশ্যে বিচার করা হবে বলে জেলেনস্কির আশঙ্কা।

বস্তুত রাশিয়া আগেই জানিয়েছিল, মারিউপলের ওই যোদ্ধারা অ্যাজব ব্যাটালিয়নের সদস্য। অতিদক্ষিণপন্থি ওই যোদ্ধাদের নব্য নাৎসি বলেও দাবি করা হয়েছিল। রাশিয়ার দখলে থাকা ইউক্রেনের অঞ্চলে আদালত বসিয়ে তাদের বিচারও শুরু হয়েছিল। জেলেনস্কির ধারণা, এবার প্রকাশ্যে তাদের বিচার হতে পারে।

আগামী ২৪ আগস্ট ইউক্রেনের স্বাধীনতা দিবস। ৩১ বছর আগে এই দিন সোভিয়েত ইউনিয়ন থেকে স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে বেরিয়ে এসেছিল ইউক্রেন। ইউক্রেনের ধারণা, ওই দিন রাশিয়া বড়সড় কোনো হামলার পরিকল্পনা করে রাখতে পারে।

এছাড়া ইউক্রেনের ভেতরে সন্ত্রাসী হামলার আশঙ্কাও উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না। এই পরিস্থিতিতে বিশেষ করে কিয়েভে বড় জমায়েত না করার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। বস্তুত ওই দিনই ইউক্রেন যুদ্ধ ছয় মাস পূর্ণ করবে।

টিএম