শুক্রবার, ১৫ জানুয়ারী ২০২১ ইং, ২ মাঘ ১৪২৭ বাংলা

সিইওদের তিনদিনের আয় কর্মীদের সারা বছরের আয়ের চেয়ে বেশি
আন্তর্জাতিক ডেস্ক প্রকাশিত হয়েছে: ২০২১-০১-০৬ ১৭:৫০:২৫ /
ওয়াশিংটনে পার্লামেন্ট ভবনে সহিংসতায় নিহত বেড়ে ৪

বছরের প্রথম তিন কর্মদিবসে যুক্তরাজ্যে বৃহত্তম প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রধান নির্বাহীরা (সিইও) যে পরিমাণ আয় করবেন, দেশটির মধ্যম আয়ের কর্মীরা বছরজুড়ে কাজ করেও সেই পরিমাণ অর্থ পাবেন না।

অন্যভাবে বললে, মাত্র ৩৪ ঘণ্টা কাজ করেই সাধারণ কর্মীদের গোটা বছরের আয়কে ছাড়িয়ে যাচ্ছেন প্রতিষ্ঠানের প্রধানরা। সম্প্রতি এ তথ্য জানিয়েছে লন্ডনভিত্তিক থিংক ট্যাংক হাই পে সেন্টার।

তারা জানিয়েছে, স্থানীয় সময় বুধবার বিকেল সাড়ে ৫টা বাজতেই এফটিএসই সূচকের শীর্ষ ১০০ প্রতিষ্ঠানের সিইওদের আয় মধ্যম আয়ের কর্মীদের বার্ষিক আয়, অর্থাৎ ৩১ হাজার ৪৬১ পাউন্ড ছাড়িয়ে যাবে।

বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের বার্ষিক আয়-ব্যয়ের হিসাব এবং সরকারি পরিসংখ্যানের ভিত্তিতে শীর্ষ কর্মকর্তাদের আয়ের এই হিসাব বের করেছে সংস্থাটি।

হাই পে সেন্টারের পরিচালক লিউক হিল্ডইয়ার্ড জানিয়েছেন, বর্তমানে যুক্তরাজ্যের সাধারণ কর্মীদের তুলনায় প্রধান নির্বাহীদের বেতন অন্তত ১২০ গুণ বেশি। গত দুই দশকে এ ব্যবধান উল্লেখযোগ্যভাবে বেড়েছে।

Chief-1.jpg

তিনি জানান, শতাব্দীর শেষভাগে এই ব্যবধান ছিল ৫০ গুণ আর ৮০’র দশকে ছিল ২০ গুণের মতো।

লিউকের মতে, অর্থনীতিতে অর্থশিল্পের ক্রমবর্ধমান ভূমিকা, স্বল্প বেতনের কাজে আউটসোর্সিং এবং ট্রেড ইউনিয়নের সদস্য কমে যাওয়া সাম্প্রতিক দশকগুলোতে শীর্ষকর্তাদের সঙ্গে অন্যদের ব্যবধান আরও বাড়িয়ে তুলেছে।

হাই পে সেন্টারের তথ্যমতে, ২০১৯ সালে যুক্তরাজ্যে প্রধান নির্বাহীদের বার্ষিক আয় ছিল গড়ে ৩৬ লাখ পাউন্ড (৪৯ লাখ মার্কিন ডলার)। ওই বছর দেশটিতে সর্বোচ্চ সম্মানীপ্রাপ্ত সিইও ছিলেন ওকাডো গ্রুপের টিম স্টেইনার। তিনি আয় করেছিলেন মোট ৫ কোটি ৮৭ লাখ পাউন্ড, যা প্রতিষ্ঠানটির সাধারণ কর্মীদের তুলনায় প্রায় ২ হাজার ৬০৫ গুণ বেশি।

লিউক হিল্ডইয়ার্ড বলেন, যুক্তরাজ্যের বৃহত্তম প্রতিষ্ঠানগুলোর বিষয়ে এই পরিসংখ্যান উদ্বিগ্ন হওয়ার মতোই। এমন উচ্চ বৈষম্য সামাজিক সংহতি, অপরাধ এবং জনস্বাস্থ্যের ওপর যে প্রভাব ফেলতে পারে, সে বিষয়ে তাৎক্ষণিক তদন্ত করা উচিত।

সূত্র: বিবিসি, ব্লুমবার্গ

জাতিসংঘে আরএসএসকে নিষিদ্ধের দাবি পাকিস্তানের