সোমবার, ২৬ অক্টোবর ২০২০ ইং, ১০ কার্তিক ১৪২৭ বাংলা

শহরের ঋণ! ঋণের শহর!
নিউজ ডেস্ক প্রকাশিত হয়েছে: ২০২০-০৮-২৯ ১১:২২:৪২ /
ভারতকে দেখুন, কী নোংরা: ডোনাল্ড ট্রাম্প

জমিদারি খালি আপনাদেরই আছে! আমরা কি মানুষ না? আপনারে এমন ময়লা নিতে বললে নিবেন? দোতলা থেকে বাড়িওয়ালা বিশাল এক ধমক লাগায়। ঐ জমিদারের বাচ্চা। তুই ময়লা নিবি না তো কি নিবি? তোরে কি মাসে মাসে টাকা দেই না? আর তোর ময়লা নিতে কষ্ট হয়, গন্ধ লাগে! ময়লা না নিতে চাস তো ভদ্রলোকের কাজ কর? কথাগুলো একজন ময়লাওয়ালাকে বলছেন ঢাকা শহরের একজন বাড়িওয়ালা। যে ছড়িয়ে ছিটিয়ে রাখা ময়লা নিতে অস্বীকৃতি জানিয়েছিল শুধু। তার বক্তব্য ছিল ময়লাগুলো ভাল করে বস্তায় ভরে রাখা শুধু আর কিছু নয়। ওরা পরিচ্ছন্নতাকর্মী। প্রতিদিন ওদেরকে এই শহরটাকে পরিচ্ছন্ন করতে হয়। বিনিময়ে তারা কিছু টাকা পায় আর পায় এমন বঞ্চনা আর অবহেলা। ঢাকা শহরটায় প্রায় ২ কোটি মানুষ বসবাস করে, কারো কারো মতে আরও অনেক বেশি। আর এই শহরের পরিচ্ছন্নতা, একে বাসযোগ্য করার দায়িত্ব পালন করে এমন হাজার হাজার পরিচ্ছন্নতাকর্মী। এই পরিচ্ছন্নতাকর্মীদের একটা ছোট অংশ বেতনভুক্ত। এই পরিচ্ছন্নতাকর্মীদের বড় অংশই বেতনভুক্ত না। এমন পরিচ্ছন্নতাকর্মীদের বাইরে শহর জুড়ে একটা বস্তা কাঁধে নিয়ে ঘুরে বেড়ায় কিশোর-কিশোরীদের দল। আমরা এদেরকে টোকাই বলি। তারা কাঁধে একটা বস্তা নিয়ে এ শহরের অলিগলিতে ঘুরে কাগজ, প্লাস্টিক টোকায়, এই টোকাইদের বড় অংশটি শিশু। ধানমন্ডি পার্কে এক শিশুকে পেয়েছিলাম তাকে বলেছিলাম সারাদিন কাগজ ও ময়লা টোকায় কেন? সে যা বলেছিল তা ভাবলে এখনো আমার চোখে পানি আসে। তার বাবা নাই, মানে মাকে ছেড়ে চলে গেছে আর বাড়িতে বোন আছে কিন্তু মা অসুস্থ। সে সারাদিনে ঘুরে ১০০ টাকা থেকে ১৫০ টাকা আয় করতে পারে আর তাই দিয়ে তার সংসার চলে। একটা প্যাটিস কিনে দিলে সে অর্ধেক খেয়ে বাকি অর্ধেক বোনের জন্য পকেটে ভরে এক দৌড়ে চলে যায়। ১২ বছরের সেই কিশোর কখনোই দুপুরে কিছু খায় না কারণ তার মা রাতের বেলাতেই শুধু রান্না করে আর রাতেই তারা একসাথে বসে খায়। এই টোকাইরা এই শহরের জন্য, ভদ্র সমাজের জন্য খুবই সমস্যার সৃষ্টি করে বলেই শোনা যায়। এরা চুরি করে, নেশা করে, ক্রাইম করে ইত্যাদি ইত্যাদি। কিন্তু এই টোকাইরা আরেকটা কাজ করে যা আমরা করাতে বাধ্য করি। আমরা যা খাই বা ব্যবহার করি, তার প্রায় সবকিছুই এই শহরের রাস্তায় ছুড়ে ফেলি, নর্দমায় ছুড়ে ফেলি, বাড়ির পাশের স্তুপ করে রাখি ময়লার অট্টালিকা বানাই আর এই অসভ্য আর নোংরা শিশু-কিশোররা তা কুড়িয়ে এই শহরকে জঞ্জালমুক্ত করে। এই কাজটা সাধারণ দৃষ্টিতে দেখলে কিছুই না কিন্তু বৈশ্বিক জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব মোকাবেলায় তারা শুধু প্লাস্টিক কুড়িয়ে যে ভূমিকা রাখে তা হাজার কোটি টাকা দিয়েও পাওয়া সম্ভব না। আচ্ছা তারা যে এই সামান্য কটা টাকার জন্য এই শহরের জঞ্জালগুলো পরিষ্কার রাখে তার অর্থমূল্য কত হবে, তার পরিবেশগত মূল্য কত হবে, তার সামাজিক ও অর্থনৈতিক মূল্য কত হবে আমরা কি কখনোই ভেবে দেখেছি? না আমরা কখনোই তা করিনি। কারণ আমরা তাদের প্রতি কোনো ঋণ অনুভব করি না। এই শহর কোনো ঋণ অনুভব করে না। তাই তো এই শহরের প্রায় ৪০ লক্ষ ভাসমান, হকার, বস্তিবাসী, টোকাই, ঝুপড়িবাসী মানুষের খোঁজ কেউ নেয়নি। এই মানুষরাই কিন্তু এই লকডাউনে সকল রাস্তাঘাট পরিস্কার রেখেছে, সংসদ ভবনের সামনের রাস্তা, ভিআইপি সড়ক, বিমানবন্দর, কমলাপুর কিছু কি নোংরা ছিল? না সকল কিছুকেই স্বাভাবিক রাখতে হয়েছে। স্বাভাবিক ছিল না কেবল তাদের জীবন যারা প্রতিদিন এই শহরের ওপর নির্ভরশীল ছিল। যারা ভোর হতেই একটা ফুলের তোড়া নিয়ে আপনার দিকে ছুটে যেত, আপনার বাজারের ব্যাগটা মাথায় করে গাড়িতে তুলে দিত, বাসার কাজের মেয়েটা সারাদিন কাজ করে করে ক্লান্ত হয়ে যেত, দারোয়ানটা সারাদিন কতই না কাজ করত কিন্তু এগুলো আর হচ্ছে না গত প্রায় ৬ মাস হলো। এই মানুষগুলো বেঁচে থাকল না মরে গেল তার খোঁজ এই শহর নেয়নি। সত্যিই নেয়নি। আমি ব্যক্তিগত উদ্যোগে ৫০ জন গৃহপরিচারিকা ও সাধারণ মানুষের উপর অনুসন্ধান করে দেখেছি লকডাউনের পরে এখন পর্যন্ত কেউ তাদের একমাসের বেতনও দেয়নি। কেউ বলেনি যে কাজে আসতে হবে না কিন্তু তোমার বেতন পেয়ে যাবে। আর যারা দিন এনে দিনে খাওয়া মানুষ তাদের তো আর কোনো উপায়ই ছিল না। সরকারি খাদ্য সহযোগিতা কেউ কেউ পেলেও অধিকাংশ মানুষ কোনো সহযোগিতা পায়নি। কারণ হলো আমরা তাদের প্রতি কোনো ঋণ অনুভব করিনি। না রাষ্ট্র, না ব্যক্তি। ২৫ মার্চ থেকে আরও একটা ভয়াবহ সময় আমাদের সামনে চলে আসল লকডাউনের মধ্য দিয়ে। আমাদের বাসার গৃহকর্মীটি যিনি ৪টা বাসায় কাজ করে মাসে প্রায় ২০ হাজার টাকা আয় করতেন তিনি পর্যন্ত রাতারাতি গ্রামে ফিরে গেলেন কাঁদতে কাঁদতে। তবে আমরা প্রতিমাসে তার বেতনটা বিকাশে পাঠিয়ে দিতাম। আমাদের গৃহকর্মী খালা গ্রাম থেকে ৪ মাস পর ঢাকা শহরে ফিরে এলো। খালার সেই ভঙ্গুর চেহারা বেশ ভাল হয়েছে কিন্তু তা মলিন হতেও খুব বেশি সময় লাগল না। ১৫ দিন যেতে না যেতেই খালা চিন্তায় পড়ে গেলেন। কীভাবে চলবেন কী করবেন, বিধবা মেয়েকে কীভাবে টাকা পাঠাবেন ইত্যাদি ইত্যাদি। কারণ ঢাকা শহরে তিনি যে ৪টি কাজ করতেন, ফেরার পর দেখা গেলো তার কাজ আছে মাত্র দুটি। তিনি যে ঘরটায় ভাড়া থাকতেন তার ভাড়াও এখন বেশি দিতে হয় কারণ ২ জন এখনও ফেরেননি। গ্রামে কেমন ছিলেন তিনি জানতে চাইলে বললেন, ‘খালু গেরামে ভালাই আছিলাম। গেরামে তো রুগ নাই আর খাওনের কষ্টও অতো আছিল না। তাই বেশ আনন্দেই কাটছে। আর কত্তবছর পর এমন কইরা থাকলাম। কিন্তুক টেকা পয়সার একটু টান পড়ছিল। ঢাকা থেইকা তো মেলাডি টেকা নিয়া গেছিলাম, টেকা দিয়া চললাম ৩ মাস। কিন্তু শেষ মাসে আইসা ঋণ হইছে মেলা টাকা।“ শহরে এসে খালার ঋণের বোঝা আরও বেড়েছে বিগত দুই মাসে।

সরকার করোনাভাইরাসকে ব্যবহার করে দুর্নীতির পাহাড় গড়েছে: ফখরুল